logo
প্রকাশ: ০৯:৫১:০০ পিএম, ০৭ এপ্রিল ২০১৮
রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে সময়ে নেবে মিয়ানমার

বিআর রিপোর্ট
বাংলাদেশের পক্ষ থেকে দেওয়া রোহিঙ্গাদের তালিকা যাচাই-বাছাইয়ে আরো সময় নেবে মিয়ানমার।

দেশটির সমাজকল্যাণ, ত্রাণ ও পুনর্বাসন মন্ত্রী উইন মিয়াত আয়ে গত শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক রেডিও ফ্রি এশিয়াকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এ কথা জানান।

আগামী ১১-১২ এপ্রিল ঢাকায় পররাষ্ট্র ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করবেন মিয়াত আয়ে। এই সফরে তিনি রোহিঙ্গা শিবিরও পরিদর্শন করবেন। তার এই সফরকে সামনে রেখে করা বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে দেরির বিষয়ে তিনি তালিকার ফরমে যাচাই-বাছাইয়ের জন্য পর্যাপ্ত তথ্য না থাকা এবং বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সময়মতো তা না পাঠানোর অভিযোগ করেন।

সম্প্রতি বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ৮ হাজার ৩২ রোহিঙ্গার একটি তালিকা মিয়ানমারকে দেওয়া হয়। সেটি যাচাই-বাছাই শেষে মাত্র ৯০০ রোহিঙ্গাকে অনুমোদিত করে নেইপিদো। এদের মধ্যে ৫০০ মুসলিম ও ৪০০ হিন্দু। বিষয়টি উল্লেখ করে ফ্রি এশিয়ার পক্ষ থেকে প্রশ্ন করা হলে মিয়াত আয়ে বলেন, ‘বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের মধ্যে যে চুক্তি হয়েছে সে অনুযায়ী ফরমে সব তথ্য পূরণ করা হয়নি। শরণার্থীরা ফরমে চাওয়া সব তথ্য যথাযথভাবে পূরণ করলে এই প্রক্রিয়া (প্রত্যাবাসন) দ্রুততর হবে। বাংলাদেশ সফরে বিষয়টি নিয়ে কথা বলব।’

প্রত্যবাসন প্রক্রিয়ায় জাতিসংঘের সংস্থাগুলোকে যুক্ত করার বিষয়ে মিয়ানমারের মন্ত্রী বলেন, ‘চুক্তিতে বিষয়টি নিয়ে কথা হয়েছে। প্রয়োজনে জাতিসংঘের সংস্থাগুলোকে যুক্ত করা যেতে পারে। আমরা ইতোমধ্যে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা (ইউএনএইচসিআর) ও উন্নয়র সংস্থার (ইউএনডিপি) সঙ্গে আলোচনা করেছি।’

শরণার্থী ইস্যুকে তিনি বাংলাদেশ ও মিয়ানমার দুই দেশের জন্যই সমস্যা বলে উল্লেখ করেন। মিয়াত আয়ে বলেন, ‘আমাদের দেশ থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়াদের ফিরিয়ে আনা আমাদের দায়িত্ব।’ কত ভালোভাবে বিষয়টি সম্পন্ন করা যায় এ নিয়ে আলোচনা করতইে তিনি বাংলাদেশে আসছেন বলে জানান। সফরে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে দেরি ও এর কারণ নিয়ে আলোচনা হবে বলেও জানান তিনি।

গত বছরের ২৫ আগস্ট রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নির্মূল অভিযান শুরু করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। নির্বাচারে গণহত্যা, ধর্ষণ, জ্বালাও-পোড়াও, লুটপাটের শিকার হয়ে এ পর্যন্ত প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। রোহিঙ্গাদের নিজ নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি না দিলেও আন্তর্জাতিক সমালোচনার মুখে তাদের প্রত্যাবাসনে রাজি হয় মিয়ানমার।